বিনোদন

ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি অভিনেত্রী সুস্মিতা সেনের ভাইজি! বিবাহ বিচ্ছেদের ঝামেলায় ব্যস্ত তার বাবা-মা

বিবাহ বিচ্ছেদের মামলা চলছে বিশ্বসুন্দরী সুস্মিতা সেনের ভাই রাজীব ও তার স্ত্রী চারুর মধ্যে । ইতিমধ্যে কোর্টে ডিভোর্সের জন্য আবেদনও জানিয়ে ফেলেছেন তারা। এদিকে তাদের একরত্তি মেয়ে জিয়ানা সেন মা-বাবার অশান্তির মাঝে পড়ে একেবারে নাজেহাল । তারই মধ্যে হঠাৎই ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে পড়ে জিয়ানা। এক রতি এই গুরুতর অসুখে হাসপাতালে ভর্তি করা ছাড়া আর কোন উপায় দেখতে পাইনি সেন পরিবার। ফলোতো এখন সেই খুদে হাসপাতালে ভর্তি।

জিয়ানা সেন এর মা চারু অবশ্য জানিয়েছেন , ” আবার ইনস্টাগ্রাম পরিবার এর সকলকে জানাই আমার এক রত্তি মেয়েটা এখন তিনদিন পর একটু ভালো আছে। গত দুদিন ধরে মারাত্মক ভুগেছে সে। এখন ও আস্তে আস্তে সুস্থ হয়ে উঠছে। একই সঙ্গে হাসপাতাল এর সমস্ত চিকিৎসক ও নার্সদের প্রশংসায় পঞ্চমুখ চারু।

এদিকে বৈবাহিক সম্পর্কে নানান ঝামেলার কারণে মেয়ের ব্যাপারে খোঁজ নিতেই হয়ত ভুলে গেছেন মেয়ের বাবা রাজিব সেন। তিনি বর্তমানে কোথায় তা এখনও জানা যায়নি।

পুজোর সময় এই দুই স্বামী-স্ত্রী একসাথে পুজো উদযাপন করেছেন সময় কাটিয়েছেন এমনকি তাদের দুজনের একসাথে ছবিও পোস্ট করেছেন সামাজিক মাধ্যমে। কিন্তু ও পুজোর মাসেই পূজো শেষ হওয়ার কয়েকদিন পরেই তাদের মধ্যে বিচ্ছেদ হয়ে যায়।

সূত্র থেকে জানা যায়, চারুর মিথ্যাচারিতার জন্যই সম্পর্কে ধরেছে ভাঙ্গন। চারু নাকি তার প্রথম বিয়ে সম্বন্ধে সব কথাই চেপে যায় রাজীবের কাছে। যদিও এই ব্যাপারে পরে মুখ খুলেছেন চারু। তিনি জানিয়েছেন তার অতীত জীবন সম্পর্কে সবটা জানিয়ে তবেই তিনি বিয়ে করেছিলেন রাজীবকে। তারপর চারু পাল্টা দাবি করেন ” আপনারা অনেকেই হয়তো শুনেছেন আমাদের বিয়ের পরে নানা সমস্যার কথা। আমি ওকে অনেকবার বুঝিয়েছি অনেকবার মানিয়ে চলার চেষ্টা করেছি কিন্তু আর পারছিনা। বহুবার ওকে সুযোগ দিয়েছি। সুযোগ দিতে দিতে গোটা তিনটে বছর কেটে গেছে।
আমাদের মধ্যে আর বিন্দুমাত্র কোন সংযোগ নেই। আমাদের সম্পর্ক শেষ হয়ে গেছে। আমি চাইনা আমাদের মেয়ে ওই তীর্থ সম্পর্কের মধ্যে তার জীবনের আগামী দিনগুলো কাটাক”

বর্তমানে তাদের মেয়ের অসুস্থতার কারণে তাদের বিবাহ বিচ্ছেদ স্থগিত হয়েছে। তবে কি তাদের মেয়েই তাদের মধ্যে হারিয়ে যাওয়া সম্পর্ক আবার নতুনভাবে গড়ে তুলবে?

 

View this post on Instagram

 

A post shared by Charu Asopa Sen (@asopacharu)

Related Articles

Back to top button